spot_img

ফ্রিল্যান্সিং কি? ফ্রিল্যান্সিং এর ১০ টি সহজ কাজ সমূহ

Must read

বর্তমান সময়ে ফ্রিল্যান্সিং একটি জনপ্রিয় পেশা। ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে অনেকেরই জানা আছে এবং অবগত আছে। ইন্টারনেট এবং তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তির মাধ্যমে এখন সবকিছুই করা যাচ্ছে ঘরে বসে। ঠিক তেমনি ঘরে বসে আয় উপার্জনের একটি মাধ্যমকে বলা যেতে পারে ফ্রিল্যান্সিং।এই কাজের জন্য নেই কোন ধরা বাধার সময় এবং নির্দিষ্ট স্থান।

ফ্রিল্যান্সিং কি?

ফ্রিল্যান্সিং চাকরির মতো একটি পেশা।যেখানে ইন্টারনেট এর মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের কাজ সম্পন্ন করে টাকা আয় করা যায়। অর্থাৎ অনলাইনে নিজের দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসেএর মাধ্যমে নির্দিষ্ট কাজ করে অর্থ উপার্জনের একটি জনপ্রিয় মাধ্যম হচ্ছে ফ্রিল্যান্সিং। 

মূলত অনলাইনে ঘরে বসে কাজ করাকে বোঝায়। ফ্রিল্যান্সিং এর জনপ্রিয়তার মূল কারণ হলো এটি একটি স্বাধীন পেশা। এটি সাধারণ চাকরির মত হলেও এর বিশেষ সুবিধা হল এটি পৃথিবীর যেকোনো প্রান্তে বসে করা সম্ভব। এর কোন নির্দিষ্ট জায়গায় বসে কাজ করার প্রয়োজন নেই। এর নেই কোন বাধা ধরা অফিস টাইম। তাই খুব স্বাধীনভাবে ফ্রিল্যান্সিংয়ের কাজটি করা সম্ভব। 

ফ্রিল্যান্সিং এর ১০ টি সহজ কাজ সমূহ।

প্রতিনিয়ত অনলাইনের বিভিন্ন  মার্কেটপ্লেসে নিত্যনতুন কাজের চাহিদা বেড়েই চলছে। বলা যায় অফলাইন দুনিয়ার সকল সেক্টরের কাজ বর্তমানে অনলাইনে ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসগুলোতে বিড করা হয়ে থাকে।

পোস্টার ডিজাইন, গ্রাফিক্স ডিজাইন,  ফটোশপ এর সকল কাজ সমূহসহ, ইলাস্ট্রেশন, লোগো ডিজাইন, ভিডিও কনটেন্ট ক্রিয়েশন, আর্টিকেল রাইটিং, বিভিন্ন বিষয় টিউটরিয়াল প্রধান, রিয়েল এস্টেট আইডিয়া, ব্যবসায়িক ধারণা সহ অনলাইনে ইনকামের এবং নিজস্ব প্রতিষ্ঠান ব্যবসাকে উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন ভাবে বায়ারগণ বিভিন্ন বিষয়ে ফ্রিল্যান্সারদেরকে হায়ার করে থাকে। 

ফ্রিল্যান্সিং এর সেরা ১০টি কাজগুলো হলো, গ্রাফিক্স ডিজাইনিং, ওয়েব ডিজাইন, ব্রাউজার ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন বা ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন অ্যাপস ডেভেলপমেন্ট,ডাটা এন্ট্রি,ডাটা সিকিউরিটি, আর্টিকেল রাইটিং ইত্যাদি। 

ফ্রিল্যান্সিং এর কিছু কাজ খুব সহজেই শিখে ফেলা সম্ভব যে কাজগুলোর মাধ্যমে সহজেই ৫০০ ডলার বা এর বেশি উপার্জন করা যাবে। সহজ ১০টি ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ সমূহ হলো,

১. টি-শার্ট ডিজাইন।

২. লোগো ডিজাইন।

৩. ফ্রিল্যান্স ফটো এডিটিং।

৪. ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট।

৫. এসইও(SEO)।

৬. ডাটা এন্ট্রি।

৭.সোশ্যাল মিডিয়া ম্যানেজার। 

৮.কন্ট্যান্ট রাইটিং।

৯.পাওয়ারপয়েন্ট প্রেজেন্টেশন। 

১০.ভিডিও এডিটিং। 

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো ?

ফ্রিলান্সার হওয়ার জন্য প্রথমত ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে বেসিক ধারণা থাকতে হবে। ফ্রিলান্সিং কি? কিভাবে কাজ করে টাকা উপার্জন করতে হয়? এর সকল বিষয় সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা রাখতে হবে। ফ্রিলান্সিং শিখতে হলে ইন্টারনেট এবং ওয়েব ব্রাউজার সম্পর্কে প্রথমে ভালোমতো ধারণা থাকতে হবে। 

এরপর গুগলে সার্চ করে বিভিন্ন ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আপনি ফ্রিতে এবং পেড কোর্স করে ফ্রিল্যান্সিং শিখা যেতে পারে। এছাড়াও ইউটিউবে টিউটোরিয়াল দেখে সম্পূর্ণ ফ্রিতে ফ্রিল্যান্সিং শিখে আয় করা সম্ভব।

ফ্রিল্যান্সিং কাজ করার জন্য কিসের প্রয়োজন।

বিশ্বের অন্যান্য দেশের সাথে তাল মিলিয়ে বর্তমানে বাংলাদেশেও প্রায় ৬.৫ লক্ষ মানুষ ফ্রিল্যান্সার হিসেবে কাজ করছেন।ফ্রিল্যান্সিং শিখে নিজের ক্যারিয়ার গড়তে চাইলে অবশ্যই জানতে হবে ফ্রিল্যান্সিং কাজ করার জন্য কিসের প্রয়োজন। একজন সফল ফ্রিল্যান্সার হওয়ার জন্য ফ্রিল্যান্সিং কাজ করার জন্য কি কি প্রয়োজন সেটার সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করতে হবে। যদি এই সকল জ্ঞান না থাকে তাহলে ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়রের মাঝ পথে গিয়ে এই কাজ আর ভালো নাও লাগতে পারে। ফ্রিল্যান্সিং এর জন্য প্রয়োজনীয় এমন কয়েকটি জিনিস হল,

  • দক্ষতা (Skill):একজন সফল ফ্রিল্যান্সার হতে হলে অবশ্যই নিজের শেখার স্পৃহা আর ইচ্ছা থাকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। কারণ একজন ফ্রিল্যান্সারকে নিজের দক্ষতা অনুযায়ী কাজ দেওয়া হয়। তাই একজন ফ্রিল্যান্সারকে নিজের মোটিভেশন ব্যবহার করে নতুন জিনিস শিখে নিজের দক্ষতা বাড়াতে হয়। কোনো দক্ষতাকে বাড়ানো হোক কিংবা নিজের কাজকে আরো ভালো করতে নতুন দক্ষতা শেখানো, উভয় ক্ষেত্রেই এটি প্রয়োজনীয়। বই পড়ে, ভিডিও দেখে, কোর্স থেকে, ইত্যাদি উপায়ে একজন ফ্রিল্যান্সার নিজ থেকে কোনো বিষয়ে দক্ষতা এবং শিক্ষা অর্জন করতে পারেন।
  • ইন্টারনেট সংযোগ এবং ল্যাপটপ/কম্পিউটার: ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য অবশ্যই ইন্টারনেট সংযোগ এবং ইলেকট্রনিক ডিভাইস প্রয়োজন। এটি সম্পূর্ণ অনলাইন নির্ভর হওয়ায় এর প্রয়োজনীয় জিনিসগুলো হলো সব ইন্টারনেট কেন্দ্রিক। তাই ইন্টারের সংযোগ থাকা আবশ্যক।ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ করার জন্য পিসি/ল্যাপটপ প্রয়োজন। বর্তমানে এর অনেক কাজ স্মার্ট ফোনের মত আরও ইলেকট্রিক ডিভাইস এর মাধ্যমেও সম্পন্ন করা যায়। 
  • কমিউনিকেশন: কমিউনিকেশন বা যোগাযোগ ফ্রিল্যান্সিং এর ক্ষেত্রে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। অনলাইনের বায়ারদের সামনে নিজের কাজকে উপস্থাপনা থেকে শুরু করে বায়ার বা ক্লায়েন্টদের সাথে যোগাযোগ স্থাপনের জন্য এটি প্র‍য়োজনীয়। যেহেতু ফ্রিলান্সিং এর কাজ আন্তর্জাতিক মানের হয়ে থাকে তাই অবশ্যই ইংরেজি ভাষায় পারদর্শী হতে হবে।

ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইটস।

মার্কেটপ্লেস বা ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইটগুলো মূলত বায়ার এবং ফ্রিল্যান্সারদের মধ্যে সংযোগস্থাপনকারী একটি মাধ্যম বা হিসেবে কাজ করে থাকে। বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং সাইটগুলোতে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের বায়াররা তাদের প্রয়োজনীয় কাজটি করানোর জন্য ঐ কাজটিতে অভিজ্ঞ ও দক্ষ ফ্রিল্যান্সার খোঁজ করে থাকেন।

ফ্রিল্যান্সিং কাজ খুঁজে পেতে বা বায়ার/ক্লায়েন্ট দের সাথে কানেক্ট করার জন্য দরকার ফ্রিল্যান্সিং সাইট বা মাধ্যম। যার মাধ্যমে খুব সহজেই পরে  যোগাযোগ স্থাপন এবং কাজ পাওয়া যায়। এই ওয়েবসাইটগুলোতে সুন্দর ভাবে নিজের দক্ষতা অনুযায়ী উপস্থাপন করার মাধ্যমে ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ পাওয়া সম্ভব। পাঁচটি গুরুত্বপূর্ণ ফ্রিল্যান্সিং সাইট হল,

১. আপওয়ার্ক।

২. ফাইবার।

৩.ফ্রিলান্সার ডট কম।

৪.পিপল পার আওয়ার। 

৫.লিংকডিন। 

উপরোক্ত এই পাঁচটি ফ্রিল্যান্সিং সাইট ব্যতীত আরো অসংখ্য ফ্রিল্যান্সিং সাইট রয়েছে। এছাড়াও বিল্যান্সার, স্বাধীন কাজ সহ আরো অনেক দেশীয় ফ্রিল্যান্সিং সাইট ও রয়েছে যেখানে ফ্রিল্যান্সিং কাজ পাওয়া সম্ভব।

- Advertisement -spot_img

More articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -spot_img

Latest article